Rabindranath Tagore: Translated by Bina Biswas

BIO

Rabindranath Tagore

Rabindranath Tagore was born in 1861 and died in 1941. He brought fame to Indian English and Bengali literature through his translation of Gitanjali which won the Nobel Prize and had a preface by WB Yeats. He was a great poet, dramatist, lyricist, fiction writer and essayist. He also illumined the history of the region by writing songs that became the national anthems of both India and Bangladesh. A thinker, educationist and freedom fighter he remains India’s foremost literary personality, translated widely and studied everywhere. He started Shantiniketan, an abode for education amidst nature is a landmark in world education and his ideas on religion that stemmed from the Brahmo Samaj also led to a deep influence on the subcontinent. He is now revered as Gurudev Tagore not only in West Bengal but also India and the whole world.

 

Dr. Bina Biswas

BIO

Dr. Bina Biswas is a Bengali of extraordinary mettle for whom each day is one in which new laurels are to be won, with  gigantic peaks to be confidently scaled. She is an example to be emulated in the fields of education, writing and litpreneurship as former professor, translator, poet, critic, editor, author of fiction and  the CEO of India’s first literary agency of international quality that is also a one-stop publishing service for all the needs of a writer. A Tagore scholar and lover of the weak, whether they are animals or birds or women  or mentally troubled, she is one of the exciting, vibrant, nature- loving ‘Romantic’ presences in today’s Indian Writing in English scene, besides being a strong, sterling, yet lovable character whom to get to know is a rare privilege and a boon, ensuring an unpredictable but fulfilling encounter that will lead to enriching your life.

(Translated from the original Bengali into English. Bios provided by the translator)

 .

 The Golden Ferry

Clouds thunder over, rain in torrents,
I sit by the bank, alone and fraught.
Load on load and stack over stack:
the paddy that I have harvested.
The laden river gushes with sharpened nip
I was harvesting when it poured.

One small farm and I am alone
on all four sides the whirling waters play.
On the other bank I see;
a village painted dark in the shade of trees,
covered with clouds in the first light.
Upon this bank, on my small farm I stay alone.

Singing in the boat who arrives at the landing?
I think I know him.
With swollen sails he comes by without
turning an eye.
The waves split feebly –
on both sides.

I think I know him.
Hey! Where do you go to a foreign land?
Anchor your vessel by the bank for once.
Then you sail wherever, give to whomever
but, accept with a moment’s smile
my golden yield stopping by this shore.

Fill on your boat what you want
is there more? – No more, I have stacked all.
All these years, with what I kept my soul beguiled
Lonely by the shore,
I have given you all…pile upon pile.
Now, mercy, take me on board.

No room, no room, tiny is the ferryboat.
Its full with my golden yield
helming across the monsoon sky
The dark wet clouds ramble by
I’m left forsaken by the empty shore
The Golden Ferry has taken my entire store.

সোনার তরী

গগনে গরজে মেঘ, ঘন বরষা।
কূলে একা বসে আছি, নাহি ভরসা।
রাশি রাশি ভারা ভারা
ধান কাটা হল সারা,
ভরা নদী ক্ষুরধারা
খরপরশা।
কাটিতে কাটিতে ধান এল বরষা।

      একখানি ছোটো খেত, আমি একেলা,
চারি দিকে বাঁকা জল করিছে খেলা।
পরপারে দেখি আঁকা
তরুছায়ামসীমাখা
গ্রামখানি মেঘে ঢাকা
প্রভাতবেলা–
এ পারেতে ছোটো খেত, আমি একেলা।

      গান গেয়ে তরী বেয়ে কে আসে পারে,
দেখে যেন মনে হয় চিনি উহারে।
ভরাপালে চলে যায়,
কোনো দিকে নাহি চায়,
ঢেউগুলি নিরুপায়
ভাঙে দুধারে–
দেখে যেন মনে হয় চিনি উহারে।

ওগো, তুমি কোথা যাও কোন্‌ বিদেশে,
বারেক ভিড়াও তরী কূলেতে এসে।
যেয়ো যেথা যেতে চাও,
যারে খুশি তারে দাও,
শুধু তুমি নিয়ে যাও
ক্ষণিক হেসে
আমার সোনার ধান কূলেতে এসে।

      যত চাও তত লও তরণী-‘পরে।
আর আছে?– আর নাই, দিয়েছি ভরে।
এতকাল নদীকূলে
যাহা লয়ে ছিনু ভুলে
সকলি দিলাম তুলে
থরে বিথরে–
এখন আমারে লহ করুণা করে।

      ঠাঁই নাই, ঠাঁই নাই– ছোটো সে তরী
আমারি সোনার ধানে গিয়েছে ভরি।
শ্রাবণগগন ঘিরে
ঘন মেঘ ঘুরে ফিরে,
শূন্য নদীর তীরে
রহিনু পড়ি–
যাহা ছিল নিয়ে গেল সোনার তরী।

.

The Spring is awakened from Dream


How have the rays of the sun
pierced into my heart
in the morning!
How have the songs of morning bird
penetrated the dark of the cave?
Know not why after so long
my soul has awakened.
My whole being spurts
Oh! The water rouses –
Oh! I cannot strap the pain and passion
of my heart.

The earth trembles and quivers
And rocks roll down,
the water foams spume and billow
Rant with irate grunts.

Here and there it rushes like a mad
in continual twirls it moves.
It wants to come out,
but cannot smash the prison gate.

Why the God seems so stony-hearted?
Why bound me in pen.
Break away, my heart, all obstacle
Triumph over life’s force today.

Beckon wave on wave,
blow upon blow.
Afire is my soul, then
why care for gloom and shackle of stones.
When the desires flood…
There is nothing to fear.

I will pour benevolence
I will sever the prison cell
I will drown the world with my
mad ecstasy.

Leaving my hair free, gathering flowers
I will soar with rain-bow painted wings,
Spraying a gleam on the sunrays, I will drain my spirit.
Running from cliff to cliff,
plummeting down the mountains
laughing cackles, I will clap and chant.
So much to talk, so much to sing, I have so much of life that
throng my heart with bliss and yearning.

I know not why my soul has awakened today
The oceanic song is heard from far away.
Oh! What dark prison cell surrounds me,
Break, break, break the walls,
bluster blow on blow.
Oh! What a song the bird has sung
and the sunshine shines.

নির্ঝরের স্বপ্নভঙ্গ

আজি এ প্রভাতে রবির কর
কেমনে পশিল প্রাণের পর,
কেমনে পশিল গুহার আঁধারে প্রভাতপাখির গান!
না জানি কেন রে এত দিন পরে জাগিয়া উঠিল প্রাণ।
জাগিয়া উঠেছে প্রাণ,
ওরে উথলি উঠেছে বারি,
ওরে প্রাণের বাসনা প্রাণের আবেগ রুধিয়া রাখিতে নারি।
থর থর করি কাঁপিছে ভূধর,
শিলা রাশি রাশি পড়িছে খসে,
ফুলিয়া ফুলিয়া ফেনিল সলিল

গরজি উঠিছে দারুণ রোষে।
হেথায় হোথায় পাগলের প্রায়
ঘুরিয়া ঘুরিয়া মাতিয়া বেড়ায় –
বাহিরেতে চায়, দেখিতে না পায় কোথায় কারার দ্বার।

কেন রে বিধাতা পাষাণ হেন,
চারি দিকে তার বাঁধন কেন!
ভাঙ রে হৃদয়, ভাঙ্রে বাঁধন,
সাধ রে আজিকে প্রাণের সাধন,

লহরীর পরে লহরী তুলিয়া
আঘাতের পরে আঘাত কর।
মাতিয়া যখন উঠেছে পরান
কিসের আঁধার, কিসের পাষাণ!

উথলি যখন উঠেছে বাসনা
জগতে তখন কিসের ডর!
আমি ঢালিব করুণাধারা,
আমি ভাঙিব পাষাণকারা,

আমি জগৎ প্লাবিয়া বেড়াব গাহিয়া
আকুল পাগলপারা।
কেশ এলাইয়া, ফুল কুড়াইয়া,
রামধনুআঁকা পাখা উড়াইয়া,
রবির কিরণে হাসি ছড়াইয়া দিব রে পরান ঢালি।
শিখর হইতে শিখরে ছুটিব,

ভূধর হইতে ভূধরে লুটিব,
হেসে খলখল গেয়ে কলকল তালে তালে দিব তালি।
এত কথা আছে, এত গান আছে, এত প্রাণ আছে মোর,
এত সুখ আছে, এত সাধ আছে – প্রাণ হয়ে আছে ভোর।।

কী জানি কী হল আজি, জাগিয়া উঠিল প্রাণ –
দূর হতে শুনি যেন মহাসাগরের গান।
ওরে, চারি দিকে মোর
এ কী কারাগার ঘোর –
ভাঙ ভাঙ ভাঙ কারা, আঘাতে আঘাত কর্।
ওরে আজ কী গান গেয়েছে পাখি,
এসেছে রবির কর।।

3. Swing

With my heart I will play today
A game of death
In the dark of the night.
Rain in torrents, a darkling sky
Behold, all sides moan in the tumultuous downpour
On the ominous universal wave…
I sail my dinghy;
deriding the dream bed I come
out in the sinister dark
Oh, in the wind, sky and sea today
What uproar
Hey sway, sway


The furious yell hurtles and tosses
from the rear it laughs ‘Ha ha’
like sonorous bellow of a hundred thousand yaksha children
The drunkards and the madmen run riot…
In the heaven and hell…
Hey sway, sway…


Sits up, my heart
awakened from slumber
near my breast.
At intervals she trembles
crushes herself on my chest
my heart dances
in sealed brutal and content cuddle
In dread and glee
My heart grows restless


Oh! For long I raised her
With every care
Upon her cradle
Fret! She feels the pain or grief shows
Night and day
I enrobe her with love
A floral bridal bed for her, I fashioned
behind the closed doors I kept her
with my caress and care


I have cuddled and kissed her,
Many a time, with warmth
Uttering soft sweet nothings
On illumined nights
On my harp I have played her
Lilting melody
What all honeyed I gave unto
her two clasps
tenderly

Her blissful cradle weary her at last –
Her idle stupor
Extravagance.
with my touché she no longer awakes
droops down with the flower-garlands
sleep and trance one with her
night and day turn one
benumbed lifeless hate sliced her within
Opulently


I decant sweet over sweet
My bride forfeit
Beyond reach
The bridal lamp sputters and dies
My anxious eyes see on four sides
Only shriveled flowers mound on heap
Sunk in the depthless dream sea
I fight for life
Whom do I seek out?


Thus I thought to play today
A new game
At night-time
In the death-swing clutching the ropes
Two of us will huddle close
The gale will come and give a push
With echoing glee
My heart and I will play the swaying game
In the dark of night


Hey sway, sway!
Sway, sway!
Heave a gale on this ocean!
My bride I have found again,
back in my lap,
My dearest is awakened by the blare
In my heart’s veins there wrench again
What stir
In and out
What a clamuor has mounted in my heart!
Her curls, her robe-end
Her floral wreath in the wind fly –
Her bangles tinkle, her anklets clink
In frantic chime
Hey sway, sway!
Arrive, O blizzard, my rêne’
Piled array, drive away
Loot her veil, unrobe her!
Hey sway, sway!


My spirit and I, face to face, today,
Will cherish each other, close to breast,
On ecstasy’s arms:
Hey sway, sway!
Waking out of dreams,
Today two madmen leap:
Hey sway, sway!

ঝুলন

আমি পরানের সাথে খেলিব আজিকে মরণখেলা
নিশীথবেলা।
সঘন বরষা, গগন আঁধার
হেরো বারিধারে কাঁদে চারিধার
ভীষণ রঙ্গে ভবতরঙ্গে ভাসাই ভেলা;
বাহির হয়েছি স্বপ্নশয়ন করিয়া হেলা
রাত্রিবেলা॥
ওগো, পবনে গগনে সাগরে আজিকে কী কল্লোল!
দে দোল্ দোল্।
পশ্চাত্‍‌ হতে হাহা করে হাসি
মত্ত ঝটিকা ঠেলা দেয় আসি,
যেন এ লক্ষ যক্ষশিশুর অট্টরোল।
আকাশে পাতালে পাগলে মাতালে হট্টগোল!
দে দোল্ দোল্।
আজি জাগিয়া উঠিয়া পরান আমার বসিয়া আছে
বুকের কাছে।
থাকিয়া থাকিয়া উঠিছে কাঁপিয়া,
ধরিছে আমার বক্ষ চাপিয়া,
নিঠুর নিবিড় বন্ধনসুখে হৃদয় নাচে;
ত্রাসে উল্লাসে পরান আমার ব্যাকুলিয়াছে
বুকের কাছে॥
হায়, এতকাল আমি রেখেছিনু তারে যতনভরে
শয়ন-‘পরে।
ব্যথা পাছে লাগে—- দুখ পাছে জাগে
নিশিদিন তাই বহু অনুরাগে
বাসরশয়ন করেছি রচন কুসুমথরে;
দুয়ার রুধিয়া রেখেছিনু তারে গোপন ঘরে
যতনভরে॥
কত সোহাগ করেছি চুম্বন করি নয়নপাতে
স্নেহের সাথে।
শুনায়েছি তারে মাথা রাখি পাশে
কত প্রিয়নাম মৃদুমধুভাষে,
গুঞ্জরতান করিয়াছি গান জ্যোত্‍‌স্নারাতে;
যাকিছু মধুর দিয়েছিনু তার দুখানি হাতে
স্নেহের সাথে॥
শেষে সুখের শয়নে শ্রান্ত পরান আলসরসে
আবেশবশে।
পরশ করিলে জাগে না সে আর,
কুসুমের হার লাগে গুরুভার,
ঘুমে, জাগরণে মিশি একাকার নিশিদিবসে
বেদনাবিহীন অসাড় বিরাগ মরমে পশে
আবেশবশে॥
ঢালি মধুরে মধুর বধূরে আমার হারাই বুঝি,
পাই নে খুঁজি।
বাসরের দীপ নিবে নিবে আসে,
ব্যাকুল নয়ন হেরি চারি পাশে
শুধু রাশি রাশি শুষ্ক কুসুম হয়েছে পুঁজি;
অতল স্বপ্নসাগরে ডুবিয়া মরি যে যুঝি
কাহারে খুঁজি॥
তাই ভেবেছি আজিকে খেলিতে হইবে নূতন খেলা
রাত্রিবেলা
মরণদোলায় ধরি রশিগাছি
বসিব দুজনে বড়ো কাছাকাছি,
ঝঞ্ঝা আসিয়া অট্ট হাসিয়া মারিবে ঠেলা;
আমাতে প্রাণেতে খেলিব দুজনে ঝুলনখেলা
নিশীথবেলা॥
দে দোল্ দোল্।
দে দোল্ দোল্।
এ মহাসাগরে তুফান তোল্
বধূরে আমার পেয়েছি আবার, ভরেছে কোল।
প্রিয়ারে আমার তুলেছে জাগায়ে প্রলয়রোল।
বক্ষশোণিতে উঠেছে আবার কী হিল্লোল!
ভিতরে বাহিরে জেগেছে আমার কী কল্লোল!
উড়ে কুন্তল, উড়ে অঞ্চল,
উড়ে বনমালা বায়ুচঞ্চল,
বাজে কঙ্কণ বাজে কিঙ্কিণীমত্তরোল।
দে দোল্ দোল্।
আয় রে ঝঞ্ঝা, পরানবধূর
আবরণরাশি করিয়া দে দূর,
করি লুণ্ঠন অবগুণ্ঠনবসন খোল্।
দে দোল্ দোল্।
প্রাণেতে আমাতে মুখোমুখি আজ
চিনি লব দোঁহে ছাড়ি সব লাজ,
বক্ষে বক্ষে পরশিব দোঁহে ভাবে বিভোল।
দে দোল্ দোল্।
স্বপ্ন টুটিয়া বাহিরিছে আজ দুটি পাগল।
দে দোল্ দোল্।

Africa

Distressed, in the days of the primeval age
when the Maker irritated with himself
was ravaging the new creation again and again,
In those days of His impatience, the frequent tossing of head,
The enraged arms of the ocean snatched you from
the breast of the Eastern mother-earth, Africa,
and tied you down under the thick watch of foliage
in the inner quad of stingy light.

There in the solitude of leisure
you accessed the mysterious remote
besought to learn the obscure notes of
water, land and sky.
The nature’s imperceptible wonders
aroused spells in your cataleptic mind.
You scorned the dreadful
in the appalling guise,
yearning to beat the terror,
by making yourself grotesque in stern grandeur
to the drumbeats of the divine dance.

O the shadowed one,
beneath the dark veil,
unknown was your human form
to the hatred’s blurry eyes.
Came they with iron manacles
their claws sharper than your wolves,
Arrived the human-trappers
More blind with pride than your sunless woods

The savage hunger of the civilized
bared its brazen inhumanity.
The forest paths moistened with
muted sighs, the dust was mucky
with your tears and blood.
Crushed under the nailed boots of the bandits,
on the ugly lumps of clay
left their stubborn scripts
in your insulted history.

Across the ocean, all the while, in their towns
bells chimed in their temples
morning and evening in the name of all merciful God.
The children played in their mothers’ arms;
the poets’ songs rang with the adulation of beauty.

Today, when on the western horizon
The evening is breathless in the windstorm,
the beasts emerge from the hollow caves
Announce the end of the day with their ugly howl,
Come , O poet of the eon,
in the approaching gloom of the dusk,
Stand at the doors of the slighted woman,
Say, ‘Forgive us’.
Amidst delirious raving,
Let these be the last hallowed words of your civilization.

আফ্রিকা

উদ্‌ভ্রান্ত সেই আদিম যুগে
স্রষ্টা যখন নিজের প্রতি অসন্তোষে
নতুন সৃষ্টিকে বারবার করছিলেন বিধ্বস্ত,
তাঁর সেই অধৈর্যে ঘনঘন মাথানাড়ার দিনে
রুদ্র সমুদ্রের বাহু
প্রাচী ধরিত্রীর বুকের থেকে
ছিনিয়ে নিয়ে গেল তোমাকে, আফ্রিকা,
বাঁধলে তোমাকে বনস্পতির নিবিড় পাহারায়
কৃপণ আলোর অন্তঃপুরে।
সেখানে নিভৃত অবকাশে তুমি
সংগ্রহ করছিলে দুর্গমের রহস্য,
চিনছিলে জলস্থলআকাশের দুর্বোধ সংকেত,
প্রকৃতির দৃষ্টিঅতীত জাদু
মন্ত্র জাগাচ্ছিল তোমার চেতনাতীত মনে।
বিদ্রূপ করছিলে ভীষণকে
বিরূপের ছদ্মবেশে,
শঙ্কাকে চাচ্ছিলে হার মানাতে
আপনাকে উগ্র করে বিভীষিকার প্রচণ্ড মহিমায়
তাণ্ডবের দুন্দুভিনিনাদে।
হায় ছায়াবৃতা,
কালো ঘোমটার নীচে
অপরিচিত ছিল তোমার মানবরূপ
উপেক্ষার আবিল দৃষ্টিতে।
এল ওরা লোহার হাতকড়ি নিয়ে
নখ যাদের তীক্ষ্ণ তোমার নেকড়ের চেয়ে,
এল মানুষধরার দল
গর্বে যারা অন্ধ তোমার সূর্যহারা অরণ্যের চেয়ে।
সভ্যের বর্বর লোভ
নগ্ন করল আপন নির্লজ্জ অমানুষতা।
তোমার ভাষাহীন ক্রন্দনে বাষ্পাকুল অরণ্যপথে
পঙ্কিল হল ধূলি তোমার রক্তে অশ্রুতে মিশে;
দস্যুপায়ের কাঁটামারা জুতোর তলায়
বীভৎস কাদার পিণ্ড
চিরচিহ্ন দিয়ে গেল তোমার অপমানিত ইতিহাসে।
সমুদ্রপারে সেই মুহূর্তেই তাদের পাড়ায় পাড়ায়
মন্দিরে বাজছিল পুজোর ঘণ্টা
সকালে সন্ধ্যায়, দয়াময় দেবতার নামে;
শিশুরা খেলছিল মায়ের কোলে;
কবির সংগীতে বেজে উঠছিল সুন্দরের আরাধনা।
আজ যখন পশ্চিমদিগন্তে
প্রদোষকাল ঝঞ্ঝাবাতাসে রুদ্ধশ্বাস,
যখন গুপ্তগহ্বর থেকে পশুরা বেরিয়ে এল,
অশুভ ধ্বনিতে ঘোষণা করল দিনের অন্তিমকাল,
এসো যুগান্তরের কবি,
আসন্ন সন্ধ্যার শেষ রশ্মিপাতে
দাঁড়াও ওই মানহারা মানবীর দ্বারে,
বলো ক্ষমা করো‘—

হিংস্র প্রলাপের মধ্যে সেই হোক
তোমার সভ্যতার শেষ পুণ্যবাণী।

*****

.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Connect with Facebook